ইংলিশম্যান রোডসের হাত ধরে ইংল্যান্ডে হবে কি স্বপ্নপূরণ !

এবারের বিশ্বকাপের একমাত্র ইংলিশ কোচ বাংলাদেশের স্টিভ রোডস। ইংল্যান্ডে দীর্ঘ ২০ বছর খেলা আর ১১ বছরের কোচিং ক্যারিয়ারের অভিজ্ঞতা বাংলাদেশ দলকে বাড়তি সুবিধা দেওয়ারই কথা।

বেশ ভালো চলতে থাকা চন্ডিকা হাতুরুসিংহা হুট করে কোচের দ্বায়িত্ব ছাড়লে দীর্ঘ ৮ মাস কোচ ছাড়া ছিল টাইগাররা। মাঝে কোটর্নী ওয়ালশ কে ভারপ্রাপ্ত কোচের দ্বায়িত্ব দিয়েছিল বিসিবি। গত বছরের জুন মাসে টাইগারদের দ্বায়িত্ব নেন স্টিভ রোডস। ২০২০ সালের টি২০ বিশ্বকাপ পর্যন্ত তার সাথে চুক্তি করে বিসিবি।

ইংল্যান্ডের হয়ে ১১ টি টেস্ট ও ৯ টি ওয়ানডে খেলেছেন সাবেক এই উইকেটরক্ষক। তবে আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার উজ্জ্বল ছিল না রোডসের। ২৪.৫০ গড়ে ১১ টেস্টে করেছেন ২৯৪ রান। ৯ ওয়ানডেতে ১৭.৮৩ গড়ে করেছেন মাত্র ১০৭ রান। তবে ”লিস্ট এ” ক্রিকেটে বেশ সমৃদ্ধ ক্যারিয়ার রোডসের। ৪৪০ ম্যাচে ৩২.৮২ গড়ে করেছেন ১৪,৮৩৯ রান। উইকেটের পিছনে ইংল্যান্ডের সেরাদের অন্যতম একজন তিনি।

২০০৬ সালে তার নিজের ক্লাব উস্টারশায়ারেই কোচ হিসেবে টম মুডির স্থলাভিষিক্ত হন। ২০০৬ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত একই সাথে কোচ এবং পরিচালক হিসেবে দ্বৈত ভূমিকা বেশ সফলভাবেই পালন করেন। তার হাত ধরেই মাঝারি মানের দল নিয়ে কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশিপে ডিভিশন ওয়ানে উন্নীত হয়েছিল উস্টারশায়ার। ২০১১ সালে প্রথম বাংলাদেশী হিসেবে কাউন্টি খেলতে গিয়ে তার অধীনেই দুই মৌসুমে ২৬ ম্যাচ খেলেছেন সাকিব আল হাসান। ইংল্যান্ড অনুর্ব্ধ-১৯ দলের ও কোচ ছিলেন রোডস।নতুন প্রতিভা খোঁজে বের করায় বেশ সুখ্যাতি রয়েছে তার।

টাইগারদের সাথে রসায়নটা বেশ ভালোই জমেছে সদা হাস্যজ্জ্বল রোডসের। প্রায় প্রত্যেক খেলোয়াড়ের সাথেই বন্ধুসুলভ সর্ম্পক তার। তার হাত ধরেই প্রথম বারের মত ত্রিদেশীয় শিরোপা জিতেছে বাংলাদেশ।

এবারের বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডে তার অভিজ্ঞতা আর ট্যাক্টেটিস বাংলাদেশকে কত দূরে নিয়ে যাবে তা সময় ই বলে দিবে।

Share:

Author: Tonmoy Bhowmick