বাংলাদেশ ক্রিকেট

কোহলি-স্মিথদের মতো টেস্ট প্লেয়ার তৈরি করাই লক্ষ্য র‍্যাডফোর্ডের

ক্রিকেটের সবচেয়ে রাজকীয় সংস্করণ হচ্ছে টেস্ট ক্রিকেট। সকল খেলোয়াড়দেরই স্বপ্ন থাকে টেস্ট ক্রিকেট খেলার। কিন্তু বাংলাদেশের বর্তমান প্রজন্ম যেন মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে ক্রিকেটের এই ফরম্যাট থেকে। ক্রিকেটের ৩ ফরম্যাটে ভালো করতে হলে টেস্ট ক্রিকেটে মনযোগী হবার বিকল্প নেই। বাংলাদেশের ক্রিকেটের আগামী প্রজন্মের জন্য বিরাট কোহলি-স্টিভ স্মিথদের মতো ক্রিকেটার তৈরি করতে চান হাই-পার্ফমেন্স (এইচপি) দলের নতুন কোচ টবি র‍্যাডফোর্ড।

আজ (বৃহস্পতিবার) ভার্চুয়াল এক প্রেস মিটিংয়ে এসব কথা বলেন র‍্যাডফোর্ড। টেস্ট ক্রিকেটের অজানা সব তথ্য সেখাতে চান এইচপি দলের খেলোয়াড়দের। এই ফরম্যাটে ভালো করতে যা যা দরকার সেদিকেই বাড়তি নজর তাঁর।

র‍্যাডফোর্ড বলেন, “আমি ছেলেদের টেকনিক নিয়ে কাজ করব, ওদের পরীক্ষা নেব, টেস্ট ম্যাচের আসল স্বাদ দেওয়ার চেষ্টা করব। আমি কালকে একটি প্রেজেন্টেশনে ওদেরকে বলেছি, বিশ্বের সেরা সব ক্রিকেটারদের দিকে যদি তাকাও- কেন উইলিয়ামসন, বিরাট কোহলি, বেন স্টোকস, স্টিভেন স্মিথ। ওরা সব সংস্করণে ভালো।

কারণ ওরা টেস্টে ভালো বুঝে। তাদের টেকনিকের মূলভিত্তি মজবুত। ভিত্তি মজবুত হলে এরপর সেখান থেকে টি-টোয়েন্টি বা ওয়ানডেতে উন্নতি করা যায়। আমি এই ছেলেদের টেকনিক মজবুত করার চেষ্টা করব। টি-টোয়েন্টি ও ওয়ানডে নিয়ে পরে কাজ করব।”

তার কাজের লক্ষ্যের কথা উল্লেখ করে র‍্যাডফোর্ড বলেন, “প্রথম দফার এই দুই সপ্তাহ সময় লাল বলের ক্রিকেট নিয়েই কাজ হবে। বোলিং মেশিন ব্যবহার করা, শর্ট বল, সুইং বল সামলানো, সবকিছু এমনভাবে সাজানো হয়েছে যাতে টেস্ট টেকনিক নিয়ে কাজ করা যায়।

এখন বিশ্ব ক্রিকেটে সীমিত ওভারের ক্রিকেট নিয়ে বেশি আলোচনা হয়। সবাই আইপিএল দেখছে, ৫০ ওভারের ক্রিকেট দেখছে। এখানে স্থানীয় কোচদের কাছ থেকে জেনেছি, এখানকার তরুণ ক্রিকেটাররা লাল বলের ক্রিকেট খুব বেশি খেলেনি। ওদের মানসিকতা তাই শুধু রান করার দিকেই। কিন্তু ব্যাটসম্যানের পেছনে যখন তিন স্লিপ, একটি গালি থাকবে, তখন বলের পেছনে যেতে হবে, বল ছাড়তে হবে। এগুলোও শিখতে হবে।”

বাংলাদেশকে ভারত অস্ট্রেলিয়ার মত দলের সাথে টক্কর দেয়ার মত করে গড়ে তুলতে চান র‍্যাডফোর্ড। তিনি বলেন, “আমি চাই টেস্ট ক্রিকেটে বাংলাদেশ সত্যিকারের প্রতিদ্বন্দ্বিতা করুক। সেটা শুধু দেশের মাটিতে নয়, দেশের বাইরেও। অস্ট্রেলিয়ায় মিচেল স্টার্ককে খেলতে হলে এখানেও সেভাবেই প্রস্তুতি নিতে হবে। সেই টেকনিক থাকতে হবে, এটিই আমার লক্ষ্য।”

 

 

To Top