fbpx

শৈল্পিক সাকিবের অপেক্ষায় কোটি ভক্ত-সমর্থক

দেশের ক্রিকেটকে যদি একটি বিশাল আকাশের সাথে তুলনা করা হয়, তবে সেই বিশাল আকাশের অত্যুজ্জ্বল নক্ষত্রের নাম সাকিব আল হাসান। দেশের ক্রিকেটাকাশের সবচেয়ে দামি নক্ষত্র বললেও ভুল হবেনা। যেই নক্ষত্রের আলোয় আলোকিত দেশের ক্রিকেটাকাশ। শুধু দেশের ক্রিকেটাকাশ-ই আলোকিত হয়নি তাঁর দ্বারা, আলোকিত হয়েছে বিশ্ব ক্রিকেটাকাশ। কেননা তাঁর নামের আগে যে সর্বদাই বিশ্বসেরা শব্দটি বসাতে বসে সেটিই তার জলজ্যান্ত দৃষ্টান্ত।

দেশের ক্রিকেটকে যদি একটি বিশাল ফুল বাগানের সাথে তুলনা করা হয়, তবে সেই বিশাল ফুল বাগানের সবচেয়ে সৌরভময় ফুলটির নাম সাকিব আল হাসান। যেই ফুলে সুবাসে শুধু সাকিবের পরিবার সুবাসিত হয়নি। সুবাসিত হয়েছে আমাদের লাল-সবুজের ছোট্ট পতাকাটিও। শুধু তাই নয়, সেই সাকিব নামক ফুলের ঘ্রাণে বিশ্ব আজ মাতোয়ারা।

বিজ্ঞাপন

দেশের ক্রিকেট কে যদি একটি নৌকার সাথে তুলনা করা হয়, তাহলে সেই নৌকার একজন দক্ষ মাঝি সাকিব আল হাসান। প্রতিনিয়ত-ই ছাড়িয়ে যাচ্ছেন নিজেকে। গত ১৪-১৫ বছর দল নামক নৌকাটিকে নিজেই শক্তহস্তে নোঙ্গরে করেছেন বহুবার। যখন আকাশে মেঘ জমে যায়, তখন যেমন একজন দক্ষ মাঝিই কেবল তাঁর নৌকাকে কিনারায় ভেড়াতে সক্ষম হন। ঠিক তেমনভাবে যখনই দেশের ক্রিকেটাকাশে মেঘের আনাগোনা দেখা দেয়, ঠিক তখনই দক্ষ মাঝির মতো দল নামক নৌকাটি তীরে ভেড়াতে সক্ষম হন সাকিব আল হাসান

এমন অজস্র আবেগপূর্ণ রুপক নামে তাঁকে ডাকা যেতে পারে। কেননা তিনিই দেশের ক্রিকেটপ্রেমীদের কাছে আবেগের সমার্থক শব্দ। কত-শত সমৃদ্ধ অর্জন রয়েছে তাঁর। দেশের তরে নিজেকে বিলিয়ে দেয়া এক হার না মানা যোদ্ধা তিনি। বর্তমান সময়ে দেশের সবচেয়ে বড় এম্বাসাডরও দেশের এই সূর্যসন্তান। পারফর্ম দিয়ে কট্টর হেটার্সদেরও শুভাকাঙ্ক্ষী বানিয়ে নিতে পারেন ক্রিকেটের তিন সংস্করণে নাম্বার ওয়ান অলরাউন্ডার হওয়া একমাত্র এই ক্রিকেটার।

গত ২৯ শে অক্টোবর, হয়তো দেশের ক্রিকেটের সবচেয়ে শোকাবহ ও বেদনাদায়ক দিন। এই দিনটির কথা মনের পটে প্রতীয়মান হলে মনে পড়ে যায় সাকিবের বিষাদে ভরা মুখখানা। চক্ষুদ্বয়ে এসে অশ্রু করে খেলা, কত চাপাকান্না, কত না বলা কথা, সব কষ্টেরা যেন বিশ্বসেরাকে স্পর্শ করে বসেছিল। সেইদিন শুধু সাকিব-ই কষ্টের জোয়ারে ভেসে যাননি। কষ্টের জোয়ারে ভেসে গিয়েছিল তাঁর সমগ্র ভক্তকুল এবং শুভাকাঙ্ক্ষীরাও।

  করোনায় আক্রান্ত যুব দলের ৩ ক্রিকেটার

এবার চোখের পানি মুছবার পালা। অপেক্ষা কেবলই মাঠে ফেরার। মাঠে ফেরার মিশনে তাঁর ক্রিকেটের আতুরঘর বিকেএসপিতে করছে অনুশীলন। তাঁর সবচেয়ে প্রিয় কোচদ্বয় নাজমুল আবেদীন ফাহিম ও মোহাম্মাদ সালাউদ্দিনের কাছ থেকে নিচ্ছেন ক্রিকেটে ফেরার সবরকমের মন্ত্র।

সাকিব ফিরবে তাঁর নিজস্ব রুপ নিয়ে, সাকিব আবারও ক্রিকেট রাঙাবেন দু’হাত দিয়ে। প্রতিক্ষার ক্ষণ শেষ হবে আগামি ২৯ অক্টোবর।

  • লিখেছেন – মোহাম্মদ জিলানি।

বিস্তারিত