fbpx

ইংলিশ ‘বিবর্তন’ ধরে রাখার প্রত্যাশা ইয়ন মরগানের

২০১৫ বিশ্বকাপের পর থেকেই নতুন ইংল্যান্ডকে দেখছে ক্রিকেট বিশ্ব। ইংলিশরা শুধু নিজেদের পরিবর্তনই করেনি ২০১৯ বিশ্বকাপ জিতে প্রমাণও করেছে। সেই পরিবর্তনে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন অধিনায়ক ইয়ন মরগান, তার চোখে এই পরিবর্তন হলো ‘ইংলিশ বিবর্তন’। অতীত সাফল্যে ভেসে না গিয়ে সামনের চ্যালেঞ্জ নিয়ে বিবর্তন ধরে রাখার প্রত্যাশা করছেন বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান।

গত বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে জয় পেয়েছিল ইংল্যান্ড। এরপর আর ওয়ানডেতে মুখোমুখি হয়নি দুই দল। ১ বছরেরও বেশি সময় পর এই ফর্মেটে আবারও আজ মুখোমুখি হতে যাচ্ছে ইয়ন মরগান ও অ্যারন ফিঞ্চের দল। মাঠে নামার আগে অতীতের সেই সাফল্য মনে রাখতে চাচ্ছে না ইংলিশ অধিনায়ক। ২০২৩ বিশ্বকাপে চোখ রেখে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে চ্যালেঞ্জ নিতে পুরোপুরি প্রস্তুত আছে ইংল্যান্ড বলে জানিয়েছেন ইয়ন মরগান, ধরে রাখতে চান বিশ্বকাপ ট্রফি।

ওল্ড ট্রাফোর্ডে খেলাটা ইংল্যান্ডের জন্য সহায়ক হবে বলেই মনে করছেন ইয়ন মরগান। তিনি বলেন, “ওল্ড ট্রাফোর্ডে খেলাটা আমাদের জন্য বিশাল সহায়ক হবে, বিশেষত আমরা যে উইকেটে খেলবো। অনেকটা স্লো এবং চাইলে ভালো করার সুযোগও থাকবে, আমরা ২০২৩ বিশ্বকাপ ভারতে খেলবো। গত চার বছর ধরে ওল্ড ট্রাফোর্ডে খেলার জন্য অপেক্ষা করতে হয়েছিল, আশা করি এই ধরনের পিচে খেলাটা আমাদের উন্নতিতে কাজ করবে।”

স্লো উইকেটে খেলা হলেও চিন্তিত নন মরগান, কারণ তার হাতে আছে আদিল রশিদের মতো অস্ত্র। তিনি বলেন, “আমার কাছে এই মুহুর্তে বিশ্বের ১ নাম্বার স্পিন বোলার আছে, সে তার খেলায় উন্নতি অব্যাহত রেখেছে। আমি যেমন তাকে দেখেছি, তেমনই সুক্ষ্ম ফর্মে আছে। বিশ্বকাপ ফাইনালের পর একাদশে ফিরছেন দুই পেসার জোফরা আর্চার ও মার্ক উডও, এটি একটি দুর্দান্ত চ্যালেঞ্জ হতে যাচ্ছে।”

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজ নিয়ে উচ্ছ্বসিত অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চও। তিনি বলেন, “ইংল্যান্ডের বিপক্ষে খেলাটা সব সময়ই মজাদার, কারণ আপনি জানেন যে প্রতিটা বলে আপনাকে লড়াই করতে হবে। আমি সিরিজটি নিয়ে খুবই উত্তেজিত। আপনি এমন একটা দলের বিপক্ষে খেলতে যাচ্ছেন যাদের বিপক্ষে ৯০ শতাংশ দিলেও হবে না, জিততে হলে ১০০% ই দিতে হবে।”

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে আঙুলের ইঞ্জুরিতে পড়লেও পুরোপুরি ফিট ইয়ন মরগান। সাইডস্ট্রেইন ইঞ্জুরি কাটিয়ে উঠে দলে ফিরেছেন জেসন রয়ও। তাই পুরো শক্তির দলই পাচ্ছে ইংল্যান্ড, টি-টোয়েন্টি সিরিজে হারলেও তাদের সেরা দলটা নিয়ে মাঠে নামবে অস্ট্রেলিয়াও। সব মিলিয়ে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী দুই দলের আগ্নিঝরা লড়াই দেখার অপেক্ষায় ক্রিকেট বিশ্ব।