সেঞ্চুরি কিংবা ম্যাচ জেতা কোনটাই হলো না জুনায়েদের, শুভ সূচনা দোলেশ্বরের

সেঞ্চুরি কিংবা ম্যাচ জেতা কোনটাই হলো না জুনায়েদের, শুভ সূচনা দোলেশ্বরের

বঙ্গবন্ধু ঢাকা প্রিমিয়ার লীগে (ডিপিএল) উদ্ভোধনী দিনে বিকেএসপির চার নাম্বার মাঠে শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে প্রাইম দোলেশ্বরের কাছে ৫ রানে হেরেছে ব্রাদার্স ইউনিয়ন, সেঞ্চুরি বঞ্চিত জুনায়েদ সিদ্দিকী আউট হয়েছেন ৯৭ রানে। সেঞ্চুরি হাঁকানো প্রাইম দোলেশ্বরের ব্যাটসম্যান তাসামুল হক ম্যাচ সেরা হয়েছেন, ৪ উইকেট নিয়েছেন রেজাউর রহমান রাজা।

বিকেএসপিকে বলা হয়ে থাকে ব্যাটিং স্বর্গ, তবে ব্যাটিংয়ে নেমে সেটার সুযোগ নিতে পারেননি ব্রাদার্সের ব্যাটসম্যানরা। ২৩৫ রানের জবাবে ৩৫ রানে ২ উইকেট হারিয়েও তুষার ইমরান ও জুনায়েদ সিদ্দিকীর ৯২ রানের জুটিতে জয়ের পথেই ছিল তারা, ফিফটি তুলে ৫১ রানে আউট হন তুষার। ৯ রানের ব্যবধানে ব্রাদার্সের ৩ ব্যাটসম্যানকে তুলে নিয়ে ম্যাচ জমিয়ে তোলেন দোলেশ্বরের বোলাররা, রাহাতুল ফেরদৌসকে সাথে নিয়ে ষষ্ঠ উইকেটে ৫৮ রান যোগ করে ব্রাদার্সকে জয়ের পথেই রাখেন জুনায়েদ।

জয়ের জন্য শেষ ২৪ বলে ২৪ রানের প্রয়োজন ছিল ব্রাদার্স ইউনিয়নের, হাতে ছিল ৩ উইকেট। জুনায়েদ সিদ্দিকী ৮৫ রানে ব্যাট করায় ম্যাচটা হেলে ছিল তাদের দিকেই, সাথে ছিলেন বোলিং অলরাউন্ডার আলাউদ্দিন বাবু। আলাউদ্দিন বাবু ফিরে গেলে ৭ বলে ১০ রানের সমীকরণ মেলাতে পারেনি জুনায়েদ, দারুণ খেলতে থাকা এই ওপেনার হঠাৎই খোলসে ঢুকে যান। ইনিংসের ২ বলে থাকতে জুনায়েদ ৯৭ রানে আউট হয়ে গেলে ২৩০ রানেই শেষ হয় ব্রাদার্সের ইনিংস, জয় দিয়ে টুর্নামেন্ট শুরু করে প্রাইম দোলেশ্বর।

এর আগে টসে হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুটা ভালো হয়নি প্রাইম দোলেশ্বরের, ধীর গতিতে এগোতে থাকা দুই ওপেনার সাইফ হাসান ও মোহাম্মদ ইমরানুজ্জামান পাওয়ার প্লে কাজে লাগাতে পারেননি। উল্টো ১২ তম ওভারে ফিরে যান সাইফ হাসান, আউট হওয়ার আগে ২৯ বলে করেন ৪ রান। ৪৯ রানে ড্রেসিংরুমের পথ ধরেন ইমরানুজ্জামানও, ৫৫ বলে ৫ চারে ৩৪ রানের ইনিংস খেলেন তিনি।

প্রাইম দোলেশ্বরের সবচেয়ে বড় তারকা ফজলে মাহমুদ রাব্বি ১৪ বলে ৬ রানে আউট হলে ৫২ রানেই তৃতীয় উইকেট হারায় দোলেশ্বর। চতুর্থ উইকেটে অভিজ্ঞ মার্শাল আইয়ুবকে নিয়ে ৪৮ রানের জুটি গড়েন তাইবুর রহমান, ৪৬ বলে ১ চারে ২৬ রান আসে মার্শালের ব্যাট থেকে। প্রাইম দোলেশ্বরের ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ শরিফুল্লাহ, শামীম হোসেনরা ভালো করতে না পারলেও একপাশে দাঁড়িয়ে যান তাইবুর রহমান।

এনামুল হক জুনিয়রকে নিয়ে ৭ম উইকেটে ৬২ রান তুলে দলকে লড়াইয়ের পূঁজি এনে দেন তাইবুর রহমান, লিস্ট এ ক্রিকেটে দ্বিতীয় সেঞ্চুরির দেখা পাওয়া এই ব্যাটসম্যান শেষ পর্যন্ত ৯৩ বলে ৬ চার ও ৫ ছয়ে ১০৬ রানে অপরাজিত থাকেন। এনামুল হক জুনিয়রের ব্যাট থেকে আসে গুরুত্বপূর্ণ ২৩ রানের ইনিংস, ২৭ রানে ২ উইকেট পেয়েছেন ব্রাদার্সের বাঁহাতি স্পিনার সাকলাইন সজিব, ১ টি করে উইকেট নিয়েছেন মাইশুকুর, আব্দুল হালিম, রাহাতুল ফেরদৌস ও আলাউদ্দিন বাবু।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

প্রাইম দোলেশ্বর স্পোর্টিং ক্লাব ২৩৫/৭ (তাইবুর রহমান ১০৬*, মোহাম্মদ ইমরানুজ্জামান ৩৪, মার্শাল আইয়ুব ২৬, এনামুল হক জুনিয়র ২৩, সাকলাইন সজিব ২৭/২, মাইশুকুর রহমান ১৯/১)।

ব্রাদার্স ইউনিয়ন ২৩০/১০ (জুনায়েদ সিদ্দিকী ৯৭, তুষার ইমরান ৫১, রাহাতুল ফেরদৌস ৩১, মিজানুর রহমান ১৭, রেজাউর রহমান রাজা ৩৬/৪, মোহাম্মদ শরিফুল্লাহ ৪৭/২, সাইফ হাসান ১৫/১)।

ম্যাচ সেরা – তাইবুর রহমান পারভেজ।

CATEGORIES